৪৪জন পুলিশ ও দুটি লক্কর ঝক্কর গাড়ি দিয়ে ২লাখ মানুষের নিরাপত্তা!

nazrulএম নজরুল ইসলাম : ২লাখ জনগোষ্ঠীকে নিরাপত্তা প্রদানের জন্য ১জন অফিসার ইনচার্জ, ৬জন এসআই, ৪জন এএসআই, চালকসহ মাত্র ২৮জন কনষ্টেবল ও ৫জন অতিরিক্ত কনষ্টেবল রয়েছে। যা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই নগন্য। তাছাড়া অফিস করার মতো তেমন কোন ভাল অফিস কক্ষ না থাকায় একটি কক্ষে ঠাসাঠাসি করে একাধিক অফিসারকে দায়িত্ব পালন করতে হয়।

থানার অফিসারদের পরিবার নিয়ে থাকার মতো ভাল কোন আবাসিক কোয়াটার নেই। যেগুলো রযেছে সেগুলোতে বসবাসের জন্য অনুপোযুগী। শুধু মাত্র অফিসার ইনচার্জের বসবাসের জন্য একটি কোয়াটার রয়েছে। অন্যান্য কোয়াটার গুলোর চারপাশে ফাটল ধরেছে। ভারি বর্ষন ঘটলেই ছাদের বিভিন্ন জায়গা দিয়ে পানি চুয়েঁ পড়ে।

যেকারণে কোয়াটারগুলো পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। এসআই ও এএসআইদের পরিবার নিয়ে থাকারমত বসবাসযোগ্য ভাল কোনো কোয়াটার না থাকায় বিভিন্ন পাড়া মহল্যার বাসা বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতে হচ্ছে। ফলে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে অফিসারদের পরিবার। এদিকে, থানার বাউন্ডারি ওয়ালের বিভিন্ন জায়গায় ফাটল ধরেছে।

কোন-কোন জায়গায় সীমানা প্রাচীর দেবে গেছে। যেকোন মুর্হুতে ভেঙ্গে পড়ার আশংখ্যায় রয়েছে। আসামি গ্রেফতার ও নিয়মিত অভিযান পরিচালনার জন্য ২টি লক্কর-ঝক্কর পিকআপ গাড়ি থাকলেও তা অধিকাংশ সময় বিকল হয়ে পড়ে থাকে। ফলে কর্তব্যরত অফিসারদের পড়তে হয় সীমাহীন দূর্ভোগে। প্রয়োজনীয় জনবল, যানবহন, জরাজীর্ণ আবাসিক ভবন ও অফিসের আসবাবপত্রসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত হয়ে পড়েছে বগুড়া জেলার নন্দীগ্রাম থানা। এসব সমস্যার কারণে এলাকার নৈমিত্তিক অপরাধ মোকাবেলা, আসামি গ্রেফতার ও মামলা পরিচালনা করতে থানার সংশ্লিষ্ঠদের প্রতিদিন নানা ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

গত বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে নন্দীগ্রাম পৌর শহরের সাবেক বাঁধন সিনেমা হল এলাকার একটি চায়ের দোকানে বসে বন্ধুদের নিয়ে খোশগল্প করছিলাম। পিছন ফিরে দেখি মটর মিস্ত্রি কাশমিরের দোকানে থানার একটি পিকআপ গাড়ি মেরামতের অপেক্ষায় রয়েছে। দুই মিনিটের মাথায় এক কাপ চা খেয়ে সেখানে যাই। কথা হয় চালক ফরিদের সাথে। জিজ্ঞেস করলাম কি হয়েছে। উত্তরে তিনি বললেন- সকালে ভাল, বিকালে অচল।

চালক ফরিদ উদ্দিন ও মিস্ত্রি কাশমির বলেন, গাড়িটি প্রায় প্রতিদিনই মেরামত করতে হয়। এরকম আরেকটি পিকআপ গাড়ি রয়েছে। নিয়মিত অভিযান পরিচালনা, সন্ধ্যা ও রাত্রী কালিন ডিউটির জন্য গাড়ি নিয়ে বের হয়ে বিপাকে পড়তে হয়। অনেক সময় মাঝ রাস্তার উপরে বিকল হয়ে পড়ে থাকে। পরে গভীর রাতের বেলায় হলেও মিস্ত্রিকে ডেকে মেরামত করে নিতে হয়। এভাবেই চলছে প্রতিদিনের কার্যক্রম।

উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের প্রায় ২লাখ জনগোষ্ঠীকে নিরাপত্তা প্রদানের জন্য অফিসার ইনচার্জ, এসআই, এএসআইসহ ৪৪জন পুলিশ রয়েছে। এছাড়া বগুড়া-নাটোর মহাসড়কের রুপিহার থেকে বাঁশের ব্রীজ পর্যন্ত পুলিশী টহল দিতে হয় ভোর রাত পর্যন্ত। লক্কর-ঝক্কর পিকআপ গাড়ির জন্য যতটুকু তেল বরাদ্দ পাওয়া যায় তা দিয়ে সারারাত পুলিশী টহল জোরদার করা কখনো সম্ভব নয়। উপজেলার কিছু গুরুত্বপূর্ন স্থানেগুলোতে পুলিশি টহল রাখতে হয়।

সেইসব স্থানে যানবাহন হিসাবে ব্যবহার করতে হয় সবুজ সিএনজি অথবা ভটভটি। সবমিলিয়ে এউপজেলার ২লাখ মানুষের নিরাপত্তায় ও থানা পুলিশের নিয়মিত অভিযান পরিচালনার জন্য লক্কর ঝক্কর পিকআপ গাড়ির পরিবর্তন হওয়া উচিত বলে মনে করছেন অভিজ্ঞ মহল। পাশাপাশি থানার অফিসারদের পরিবার নিয়ে বসবাস উপযোগী কোয়াটারসহ নৈমিত্তিক অপরাধ মোকাবেলা, আসামি গ্রেফতার ও মামলা পরিচালনা করতে নতুন গাড়ির প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সু-নজর দেওয়া কাম্য।

এপ্রসঙ্গে নন্দীগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) আবু হায়দার মো: ফয়জুর রহমান বলেন, ৪৪জন স্টাফ নিয়ে ২লাখ মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা খুবই কঠিন কাজ। অভিযান পরিচালনার জন্য দুটি পিকআপ থাকলেও পুরাতন হওয়ায় নৈমিত্তিক অপরাধ মোকাবেলা, আসামি গ্রেফতার ও মামলা পরিচালনা করতে মারাত্বক ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়। থানার কোয়ার্টারগুলো বসবাসের অনুপোযুগী হয়ে পড়েছে।

তারপরেও সাধারন মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ বাহীনি কাজ করে যাচ্ছে। গ্রামে গ্রামে পাড়ায় মহল্যায় কমিউনিটি পুলিশ ও আনসার সদস্যদের কঠোর প্রচেষ্টায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

একই প্রসঙ্গে বগুড়ার সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (বি-সার্কেল) উজ্জল কুমার রায় জানান, নতুন গাড়ি বরাদ্দ পাওয়ার সম্ভাবনা নেই। তবে খুব শিগগিরই নতুন গাড়ির একটি বরাদ্দ আসবে। সেক্ষেত্রে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট নন্দীগ্রাম থানার নৈমিত্তিক অভিযান পরিচালনার জন্য একটি গাড়ি বরাদ্দের আবেদন করা হবে। তিনি বলেন, প্রয়োজনীয় জনবল, যানবহন, জরাজীর্ণ আবাসিক ভবন ও অফিসের আসবাবপত্রসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত হলেও পুলিশ বাহীনির সদস্যরা নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। নন্দীগ্রাম থানার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে বলেও তিনি জানান।

news portal website developers eCommerce Website Design