গাইবান্ধায় পুকুরে মাছ ও পাড়ে লেবু চাষ করে কৃষকের সাফল্য

sumon-picসুমন কুমার বর্মণ, গাইবান্ধা : গাইবান্ধা সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের খামার গোবিন্দপুর গ্রামের কৃষক আব্দুর রাজ্জাক প্রামাণিক পুকুরে মাছ চাষ ও পুকুর পাড়ে লেবু-পেঁপে চাষ করে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছেন। তার এ সাফল্য এলাকায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তা দেখে অনেকেই এখন এধরনের পদ্ধতি অবলম্বন করে মৎস চাষের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। কেউবা আবার  ইতিমধ্যেই এ পদ্ধতি অবলম্বন করেছেন।

সরেজমিনে, গাইবান্ধা-সুন্দরগঞ্জ সড়কের পথ ধরে ৭ কিলোমিটার এগুলেই লক্ষ্মীপুর ইউনিয়ন বন্দর। আর এ বন্দর থেকে উত্তর দক্ষিনে ১কিলোমিটার গেলেই চোখে পড়বে আব্দুর রাজ্জাক প্রামাণিকের কয়েকটি পুকুর। পুকুরে চাষ করা হয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ এছাড়াও পুকুরের প্রত্যেকটি পাড়েই রয়েছে পেঁপে ও লেবুর গাছ। প্রত্যেকটি পেঁপে গাছেই ধরেছে অসংখ্য পেঁপে।

অপরদিকে লেবু গাছগুলোতে থোকায় থোকায় ধরেছে লেবু। যা থেকে কৃষক প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ টাকা  আয় করছেন। অন্যদিকে মাছ চাষ থেকে তো আয় রয়েই গেছে।

ইতোমধ্যে আব্দুর রাজ্জাক মাছ চাষে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করায় জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ মৎসচাষি হিসেবে পুরস্কার পেয়েছেন। তার এ সাফল্য দেখার জন্য  জাতীয় সংসদের হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি এমপি, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আশরাফুল মোমিন খান, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম মেহেদী হাসান ও সিনিয়র উপজেলা মৎস কর্মকর্তা  আবু সাঈদ তার মৎস খামার পরিদর্শনে যান।

কৃষক আব্দুর রাজ্জাক প্রামাণিক ১নং লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামে দরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। তার বাবা আফতাব হোসেন ছিলেন একজন হতদরিদ্র দিন মজুর। পাঁচ ভাই চার বোনের মধ্যে রাজ্জাক ছিলেন সবার ছোট। সংসারে অভাব অনটনের কারনে লেখা-পড়ার তেমন সুযোগ হয়ে ওঠেনি। কোনমতে প্রাথমিকের গন্ডি পেরিয়ে জীবন যুদ্ধে ঝাপিয়ে পরেন আব্দুর রাজ্জাক প্রামাণিক। জীবন পরিচালনার জন্য ঢাকা-চট্ট্রগামে গিয়ে রিক্সা ভ্যান চালিয়ে কোন মতে জীবন নির্বাহ করতেন মাত্র। এরপর সেখানে থেকে ২০০৪ সালে কিছু অর্থ বাড়িতে নিয়ে এসে ১টি ভাড়া পুকুরে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ চাষ শুরু করেন। প্রথম বারেই দেখেন সফলতার মুখ। তারপর শুরু হয় তার বিস্তর আকারের মাছ চাষ ও একই সাথে পুকুর পাড়ে লেবু-পেঁপে চাষের পরিকল্পনা। এরপর তাকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি। বর্তমানে কৃষক আব্দুর রাজ্জাক প্রামাণিক ১১টি নিজস্ব পুকুবে বিভিন্ন প্রজাতির দেশি-বিদেশী মাছ ও পাশাপাশি পুকুর পাড়ে লেবু-পেঁপে চাষ অব্যাহত রেখেছেন।

এছাড়া বর্তমানে তিনি এখন ৯বিঘা জমির মালিক।

তার এ অভাবনীয় সাফল্য দেখে অনেকেই এখন তার কাছে মৎস চাষের বিষয়ে পরামর্শ নিতে আসছেন। এতে কৃষক খুশি মনে সকলকে মৎস চাষে উদ্বুদ্ধ করতে সুপরামর্শ দিচ্ছেন।
লক্ষ্মীপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান বাদল জানান, তার এ ধরনের উদ্যোগ গাইবান্ধা জেলায় রোল মডেল হয়ে থাকবে।

news portal website developers eCommerce Website Design