মাকে বেঁধে মেয়েকে গণধর্ষণ: প্রধান আসামি গ্রেফার

ওয়ান নিউজ, নীলফামারী: বৃদ্ধা মাকে বেঁধে রেখে তিন সন্তানের জননী এক গৃহবধূকে রাতের আধারে বাড়ি হতে তুলে নিয়ে ডিমলার তিস্তা নদীর দুর্গম চরে নিয়ে দলবেধে গণধর্ষণের মামলার প্রধান আসামি আব্দুর রহিমকে গ্রেফার করেছে পুলিশ।

রোববার দুপুরে ডিমলা উপজেলার ডালিয়ার এক নম্বর বাজার হতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সোমবার তাকে জেল হাজতে পাঠানো।

গ্রেফতারকৃত আব্দুর রহিম একই উপজেলার খালিশাচাঁপানী ইউনিয়নের ছাতুনামা গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিমলা থানার এসআই সাহাবুদ্দিন জানান, মামলার প্রধান আসামি রহিমকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মামলার বরাদ দিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা জানান, ধর্ষিতা একজন গৃহবধূ। থাকেন তার মায়ের সঙ্গে। তার স্বামী ঢাকায় রিকশা চালান। এ সুযোগে গত ১৯ আগস্ট গভীর রাতে ডিমলা উপজেলার ঝুনাগাছচাপানি ইউনিয়নের পশ্চিম ছাতুনামা গ্রামের ওই গৃহবধূকে তুলে নিয়ে যায় আসামিরা। এ সময় ওই গৃহবধূর বৃদ্ধা মা বাধা দিতে গেলে তাকে আসামিরা দড়ি দিয়ে বেঁধে উঠানে ফেলে রাখে। ঘটনার পরদিন দুপুরে ওই গৃহবধূকে তিস্তার দুর্গম চরে সংজ্ঞাহীন ও হাত বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ।

তিনি আরও জানান, উদ্ধারের পর ওই গৃহবধূসহ তার মাকে প্রথমে ডিমলা হাসপাতালে ও পরে ওই গৃহবধূকে নীলফামারী সদর আধুনিক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

এসআই সাহাবুদ্দিন বলেন, জ্ঞান ফিরে এলে ওই গৃহবধূ অভিযোগ করেন- আসামিদের মধ্যে দু’জন তাকে গণধর্ষণ করে। তার ডাক্তারি পরীক্ষা করা হলে গণধর্ষণের আলামত পাওয়া যায়। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূর বাবা কলিম উদ্দিন বাদী হয়ে ডিমলা থানায় নয়জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন।

ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিকে সোমবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

news portal website developers eCommerce Website Design