প্রেমিকাকে কেটে ৭ টুকরো করার স্বীকারোক্তি

mader

বরগুনা: বরগুনার আমতলীতে চাঞ্চল্যকর কলেজছাত্রী মালা আকতার হত্যা মামলার প্রধান আসামি আলমগীর হোসেন পলাশ বুধবার আমতলী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ হুমায়ূন কবিরের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

হত্যার সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে আইনজীবী মাইনুল আহসান বিপ্লব তালুকদারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় আমতলী থানার ওসি (তদন্ত) নুরুল ইসলাম বাদল বাদী হয়ে দুজনের নাম উল্লেখ করে চারজনের নামে মামলা করেছেন।

পুলিশ অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আইনজীবী মাইনুল আহসান বিপ্লব তালুকদারকে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেছেন। বিচারক রিমান্ড আবেদনের ওপর শুনানির জন্য আগামী ৩১ অক্টোবর দিন ধার্য করেছেন।

জানা যায়, বরগুনা সদর উপজেলার গুদিঘাটা গ্রামের মোঃ মান্নান হাওলাদারের মেয়ে মালা আকতারের সঙ্গে পটুয়াখালীর মজিদবাড়িয়া ইউনিয়নের বাসণ্ডা গ্রামের আবদুল লতিফ খানের ছেলে আলমগীর হোসেন পলাশ প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। মালা সম্পর্কে আলমগীর হোসেন পলাশের মামাতো শালিকা।

মালা কলাপাড়া মোজাহার উদ্দিন বিশ্বাস কলেজের একাদ্বশ শ্রেণির ছাত্রী।

গত রোববার সন্ধ্যায় পলাশ প্রেমিকা মালাকে নিয়ে আমতলীতে তার (পলাশ) আত্মীয় অ্যাডভোকেট মাইনুল আহসান বিপ্লবের বাসায় বেড়াতে যায়। তারা তিন দিন ওই বাড়িতে অবস্থান করে।

মঙ্গলবার মালা পলাশকে বিয়ে করার জন্য চাপ দেয়। কিন্তু পলাশ এতে রাজি হয়নি। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে ঝগড়াঝাটি হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে পলাশ মালা আকতারকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে মাথা, দু’হাত, দু’পা, গলার নিচ থেকে কোমর পর্যন্ত দু’টুকরোসহ মোট সাত টুকরো করে। এরপর টুকরোগুলো ওই বাসার বাথরুমের মধ্যে দুটি ড্রামে ভরে লুকিয়ে রাখে।

এ ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগে বাসার মালিক আইনজীবী মাইনুল আহসান বিপ্লবকে ওই দিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

আমতলী থানার ওসি (তদন্ত) নুরুল ইসলাম বাদল বাদী হয়ে আলমগীর হোসেন পলাশ ও আইনজীবী মাইনুল আহসান বিপ্লবের নাম উল্লেখ করে চারজনের নামে মামলা দায়ের করেছেন।

বুধবার পলাশ আমতলী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ হুমায়ূন কবিরের আদালতে ঘটনার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

পুলিশ অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আইনজীবী মাইনুল আহসান বিপ্লব তালুকদারকে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেছে।

নিহত মালার মামা হাবিব খান বলেন, ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশ লাশ আমাদের কাছে হস্তান্তর করেছে। লাশ গুদিঘাটা গ্রামের নানার বাড়িতে দাফন করা হবে। তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় আদালতে মামলা করা হবে।

মামলার তদন্তকারী অফিসার ও ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা মোঃ শহিদ উল্যাহ বলেন, আসামি আলমগীর হোসেন পলাশ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

আমতলী আদালতের পরিদর্শক দুলাল কৃষ্ণচন্দ্র বলেন, আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মোঃ হুমায়ূন কবির আইনজীবী মাইনুল আহসান বিপ্লব তালুকদারের রিমান্ড আবেদদের ওপর আগামী ৩১ অক্টোবর শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

news portal website developers eCommerce Website Design