কলকাতার জেল থেকে পালিয়েছে তিন বাংলাদেশি বন্দী

atok in jail

ডেস্ক রিপোর্ট: কলকাতার আলিপুর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে পালাল তিন বাংলাদেশি বিচারাধীন বন্দী। কারাগার সূত্রে খবর রোববার সকালে বন্দী গণনার সময় ওই তিন বন্দীর অনুপস্থিতির বিষয়টি নজরে আসে কারাগার কর্তৃপক্ষের। এরপরই তাদের খোঁজখবর শুরু হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ। আসে পুলিশ কুকুরও।কারাগারের চারদিকে তন্নতন্ন করে অভিযান চালিয়ে এখনো পর্যন্ত তাদের খোঁজ পাওয়া যায়নি।

সূত্রে খবর, তিন বাংলাদেশি বন্দীর নাম ফারুক হাওলাদার, ইমন চৌধুরী ও ফিরদৌস শেখ। ফারুক ২০১৩ সালে ডাকাতির ঘটনায় অভিযুক্ত।

ইমন চৌধুরী ২০১৪ সালে অপহরণ মামলায় আটক হয়। অন্যদিকে বেআইনি অনুপ্রবেশ ও ডাকাতির অভিযোগে আটক করা হয় ফিরদৌসকে।

চাদর দিয়ে দড়ি বানিয়েই ওই তিন বন্দী রাতের অন্ধকারে কারাগারের পাঁচিল টপকে পালায় বলে পুলিশের অনুমান। আলিপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের চার ও পাঁচ নম্বর ওয়াচ টাওয়ারের মাঝ বরাবর বিশাল উঁচু পাঁচিলের গায়ে পায়ের ছাপ দেখে তদন্তকারীদের আরও সন্দেহ হয় যে, এই অংশ দিয়েই বন্দীরা অন্য জায়গায় চলে যেতে পারে। কিংবা পাঁচিল টপকে আদি গঙ্গা সাঁতরে অন্য পারে উঠেও জঙ্গিরা গা ঢাকা দিতে পারে। বন্দীদের খোঁজে খতিয়ে দেখা হচ্ছে কারাগারের সিসিটিভির ফুটেজও।

এদিকে আলিপুরের মতো একটি হাইপ্রোফাইল কারাগারের ওয়াচ টাওয়ার থাকা সত্ত্বেও বন্দীদের পালিয়ে যাওয়ার বিষয়টি কেন কারাগার কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়ে গেল তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে এবং ঘটনায় কারাগার কর্তৃপক্ষের কোনো জোগসাজশ আছে কি না তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ওই তিন বন্দী যাতে বাংলাদেশে পালিয়ে যেতে না পারেন সেদিকে লক্ষ্য রেখে ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের সঙ্গে সীমান্তবর্তী পশ্চিমবঙ্গের জেলা থানাগুলোতে তাদের ছবি পাঠিয়ে দিয়ে সতর্ক করা হয়েছে।

এই কারাগারেই বন্দী আছে মুসার মতো আইএস জঙ্গি। পাশাপাশি বাংলাদেশের মোস্ট ওয়ান্টেড সুব্রত বাইনের মতো কুখ্যাত জঙ্গিও এই কারাগারে রয়েছে বলে খবর। ফলে এই ঘটনার পরই কারাগারের নিরাপত্তা আরও জোরদার করা হয়েছে।

news portal website developers eCommerce Website Design