মান্নানের অসুস্থতায় কপাল খুলছে হাসান সরকারের?

mannan hasan sorkar gazipur

mannan hasan sorkar gazipurডেস্ক রিপোর্ট: গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে থেকেই মাঠে তৎপর ছিলেন বিএনপি সম্ভাব্য প্রার্থীরা। নিজ দলের মনোনয়ন নিশ্চিত করতে কেন্দ্র থেকে তৃণমূলে সমানতালে ছুটছেন তারা। এই মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে আছেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য গাজীপুরের টঙ্গীর প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব মুক্তিযোদ্ধা হাসান উদ্দিন সরকার।

অন্যদিকে শারীরিক অসুস্থতা থাকলেও এবারো দলীয় মনোনয়ন পেতে হাল ছাড়ছেন না গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র মো. আবদুল (এমএ) মান্নান।

বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, দলটি প্রথমে এই দুই নেতার বাইরে থেকে নতুন প্রজন্মের কোনো নেতাকে গাজীপুরে প্রার্থী দেয়ার বিষয়টি বিবেচনা করছিল। সেক্ষেত্রে গাজীপুরের কাপাসিয়ার আদি বাসিন্দা এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রয়াত সদস্য আ স ম হান্নান শাহর ছেলে রিয়াজুল হান্নান শাহকে মনোনয়ন দেয়ার চিন্তাভাবনা করা হয়েছিল। কিন্তু পরে সে অবস্থান থেকে সরে আসে বিএনপি।

বিএনপি নেতারা মনে করেন, সিটি করপোরেশনের ভেতরের ভোটার না হওয়ায় এবং বৈরী পরিবেশের চ্যালেঞ্জ নেয়া রিয়াজুলের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠবে।

এরপর আসে বর্তমান মেয়র আবদুল মান্নানের নাম। কিন্তু গত বেশ কিছুদিন ধরেই তিনি শারীরিকভাবে বেশ অসুস্থ। এখনো তিনি রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। শারীরিক দিক বিবেচনা করে আবদুল মান্নানের প্রার্থিতা নিয়ে বিএনপিতে কিছুটা মতদ্বৈততা তৈরি হয় গত এক সপ্তাহ ধরে।

আবদুল মান্নানের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে ফোন ধরেন তার ব্যক্তিগত কর্মকর্তা এসএম ওয়াসিম জানান, ইউনাইটেড হাসপাতাল থেকে রোববার রিলিজ পাবেন আবদুল মান্নান। তিনি নির্বাচন করতে আগ্রহী। হাসপাতাল থেকে রিলিজের দু-একদিন পর তিনি মিডিয়ায় কথা বলবেন।

ওয়াসিম জানান, নিউমোনিয়াজনিত জটিলতায় ভুগছিলেন আবদুল মান্নান।

শেষ পর্যন্ত গাজীপুর এলাকার বিএনপির আরেক প্রভাবশালী নেতা আবদুল মান্নানের প্রতিপক্ষ হিসেবে পরিচিত হাসান সরকারের নাম সামনে আসে। গত কয়েক বছরে বিভিন্ন প্রতিকূল অবস্থায়ও দলীয় কর্মসূচিতে সক্রিয় থাকা এবং দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখতে ভূমিকা রাখায় বিএনপির নীতিনির্ধারকদের একটি বড় অংশের পছন্দের তিনি।

বর্তমানে যাদের সমন্বয়ে বিএনপি পরিচালিত হচ্ছে তারাও গাজীপুর সিটিতে হাসান সরকারকে সামনে রেখে ভোট যুদ্ধে যেতে চান বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

যোগাযোগ করলে হাসান সরকার বলেন, তিনি নির্বাচনে অংশ নেয়ার জন্য সব রকম প্রস্তুতি নিয়ে যাচ্ছেন। তিনি দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

তিনি বলেন, দলের এমন কোনো কর্মসূচি নেই যেখানে তিনি অংশ নিচ্ছেন না। তাছাড়া দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গেও নির্বাচনে অংশ নেয়ার ব্যাপারে যোগাযোগ রাখছেন।

হাসান সরকার বলেন, একাধিকবার জেল খাটা, পুলিশের হাতে হেনস্তা হওয়াসহ দলের প্রতি অনুগত থাকায় তিনি মনোনয়ন পাবেন বলে আশা করছেন।

যোগাযোগ করলে রিয়াজুল হান্নান শাহ বলেন, দলীয় হাইকমান্ড তাকে মনোনয়ন দিলে দরকার হলে ভোটার স্থান পরিবর্তন করে তিনি নির্বাচন করবেন। তবে সবটাই দলীয় সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করছে।

এদিকে, গাজীপুর জেলা বিএনপির সাংগঠনিক দেখভালের দায়িত্ব পেয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি ইতোমধ্যে প্রস্তুতি শুরু করেছেন। সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে তার গাজীপুর সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে। সূত্র: পরিবর্তন ডটকম

news portal website developers eCommerce Website Design
Close ads[X]