জয়পুরহাট

কালাইয়ে আইপিএল নিয়ে যেখানে সেখানে চলছে জমজমাট জুয়ার আসর

By ওয়ান নিউজ বিডি

April 16, 2018

কালাই (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি: প্রতি বছরের ন্যায় এই বছরও জমকালো ভাবে শুরু হয়েছে ইন্ডিয়া প্রিমিয়ার লীগ (আইপিএল)। মুলত ভারতে এই খেলা অনুষ্ঠিত হলেও বাংলাদেশের প্রতিটা জেলা উপজেলা থেকে শুরু করে পাড়া মহল্লায় পড়েছে এর ক্ষতিকর প্রভাব। আইপিএলের প্রতিটি ম্যাচ নিয়ে চলছে বাজি বা জুয়া খেলা। কোন দল আজ জিতবে, কোন দল আগে ব্যাটিং করবে, কোন দল আজ ফিল্ডিং পাবে, এক ওভারে কত রান আসবে, এক ওভারে কয়টা ছক্কা হবে, ওভারে উইকেট যাবে কি যাবে না এসব নিয়ে উপজেলার যেখানে সেখানে চলছে নেশার মতো জুয়ার আসর। চলছে একশত টাকা থেকে হাজার হাজার টাকার বাজি।

আইপিএল নিয়ে জুয়ার আসর এখানে নতুন কিছু নয়। এই লিগ শুরুর পর থেকে বাজিকরদের একটা অংশ উপজেলার তরুন এবং যুবকদের টেনে নিয়ে যাচ্ছে এ ধরনের নেশার দিকে। এছাড়াও দেশ-বিদেশে ইন্টারনেটের মাধ্যমে যোগাযোগ করে প্রতিদিন আইপিএল ম্যাচের উপর বাজি ধরছেন কিছু সংখক ডিজিটাল জুয়াড়ি। একদিনে কেউ জিতে হচ্ছেন হাজার পতি থেকে লাখপতি আবার কেউবা সবকিছু হারিয়ে সর্বশান্ত হচ্ছেন। উপজেলায় আইপিএল জুয়াতে হারানোর গল্পটাই বেশি সংখক।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একদল জুয়াড়ি বলেন, ‘আমরা বাড়ীতে বসে কম্পিউটার এর মাধ্যমে সব খেলোয়াড়ের বল, রান, উইকেট এগুলো ছোট ছোট করে ঘর তৈরি করি। এরপর আগ্রহী ব্যক্তিদের সাথে ফোনে যোগাযোগ হয়। কথা ঠিক থাকলে শেষে বিকাশের মাধ্যমে বাজির টাকা নেওয়া হয়। তিনি জিতলে আমরা তাকে ডাবল টাকা বিকাশে দিয়ে দেই। নয়তো পুরাটাই আমাদের থেকে যায়। অর্থ্যাৎ যে টাকা বাজি ধরা হবে তার দ্বি-গুন পাবেন সেই ব্যক্তি। তবে বেশিরভাগ সময় জুয়া জেতেন না ভুক্তভোগিরা। এ ধরনের জুয়ার আসরে নিন্ম আয়ের মানুষ থেকে শুরু করে বিত্তশালীদের ছেলেরা জড়িয়ে পড়ছে বলে জানা যায়।

ক্রিকেটের উপর বাজি ধরার প্রক্রিয়াটি অনেক অনেক পুরানো। এরজন্য জীবন দিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক হ্যানসি ক্রনিয়ে। ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে ভারতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন, বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুলসহ পাকিস্তানের অনেক তারকা ক্রিকেটার। কিন্তু আইপিএলকে সরাসরি জুয়া বলেন অনেকে। তাই তরুন ও যুবসমাজকে আইপিএল নামক জুয়াড় হাত বাচাঁতে পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন উপজেলাবাসী।