আদমদীঘিতে স্ত্রীর হাতে স্বামী খুন

বগুড়া: বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার ছাতিয়ানগ্রাম ইউনিয়নের শালগ্রাম সরদারপাড়ায় এখলাছ উদ্দিন বিপ্লব (৩২) নামে এক ব্যক্তি স্ত্রীর হাতে খুন হয়েছেন। বুধবার সকালে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।ঘটনার পর নিহতের স্ত্রী সাইমা বেগমকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার গভীর রাতে এ হত্যার ঘটনা ঘটে।

নিহত এখলাছ উদ্দিন বিপ্লব ওই গ্রামের মৃত আব্দুল হাইয়ের ছেলে। তিনি পেশায় ট্রাকচালক ছিলেন।পুলিশ জানায়, বিপ্লবের সঙ্গে ৮ বছর আগে একই উপজেলার সান্তাহার পৌঁওতা গ্রামের মোজাম্মেল হকের মেয়ে সাইমা বেগমের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে পারিবারিক কলহ লেগেই ছিল। সাইমা বেগম শ্বশুরবাড়িতে পরিবারের সঙ্গে থাকতে অনিহা প্রকাশ করলে বাধ্য হয়ে ট্রাকচালক স্বামী বিপ্লব স্ত্রীকে নিয়ে কখনো সান্তাহার শহরে কখনো আদমদীঘি উপজেলা শহরের একাধিক স্থানে ভাড়া বাসায় বসবাস করছিলেন। ৭/৮ মাস আগে বিপ্লবের বাবা মারা গেলে তারা গ্রামের বাড়িতে বসবাস করতে থাকেন। কিন্তু স্ত্রী সাইমা এতে আপত্তি করেন। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটতো।

নিহত বিপ্লবের ছোট ভাই বাধন হোসেন জানান, তার বড় ভাইয়ের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। তার ভাই খুব নিরীহ প্রকৃতির মানুষ। প্রায়ই ভাবি ভাইকে নানাভাবে নির্যাতন করতেন।

তিনি আরও বলেন, শবে বরাতের মিলাদ ও তোবারক বিতরণ শেষে রাত ২টার দিকে বাড়িতে দেখি ভাইয়ের শয়ন কক্ষের দরজায় বাহির থেকে বন্ধ করে ভাবি বারান্দায় ঘুমাচ্ছে। এর ঘণ্টাখানেক পর ভাবির চিৎকার শুনি। তিনি কে কোথায় আছো সানজিতের বাবা আর নাই বলে চিৎকার করেন। চিৎকার শুনে আমরা নিজ নিজ ঘড় থেকে বের হয়ে ভাইকে বিছানায় শোয়া ও অচেতন অবস্থায় দেখি। পরে তাকে নিয়ে হাসপাতালে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

আদমদীঘি থানার ওসি (তদন্ত) কিরন চন্দ্র জানান, পুলিশের সুরতহাল রিপোর্টে মরদেহের শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারপিট ও গলায় ফাঁসের দাগ রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বিপ্লবকে মারপিট ও শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে জানা গেছে। ঘটনার পর নিহতের স্ত্রী সাইমা বেগমকে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

news portal website developers eCommerce Website Design