রাত পোহালেই ভোট

gazipur city

gazipur cityডেস্ক রিপোর্ট: আজ রাত পোহালেই গাজীপুর সিটি নির্বাচনের ভোট গ্রহণ। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোট চলবে। ভোট গ্রহণে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। আজ কেন্দ্রে কেন্দ্রে পাঠানো হবে ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনী মালামাল। আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে মাঠে নেমেছেন বিজিবি-র‌্যাব-পুলিশের সদস্যরা। অপেক্ষা এখন শুধু ভোট গ্রহণের।

সিটিতে ভোট ঘিরে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। সংসদ নির্বাচনের আগে গাজীপুরের ভোটকে মর্যাদার লড়াই হিসেবে দেখছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। তাই গতকাল শেষ প্রচার-প্রচারণার দিনেও ঘাম ঝরিয়েছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। দিনভর নগরীর অলিগলি চষে বেড়িয়েছেন তারা। সংসদ ও রাজশাহী-বরিশাল-সিলেট সিটি নির্বাচনের আগে জনপ্রিয়তার যাচাই হবে গাজীপুরে। লড়াই হবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নৌকা ও বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকের মধ্যে। দুই দলই নির্বাচনী লড়াইয়ের সর্বশক্তি নিয়ে মাঠে রয়েছে। যদিও দুই দলের মেয়র প্রার্থী ছাড়াও আরও পাঁচজন মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে কে হচ্ছেন গাজীপুরের নগরপিতা তা নির্ধারণ হবে কাল। নির্বাচন নির্বিঘ্ন করতে গাজীপুরজুড়ে নিরাপত্তাবলয় গড়ে তুলেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ভোটের দিন নির্বাচন কমিশনের ৬১ জন নিজস্ব পর্যবেক্ষক মাঠে কাজ করবেন। তারা ভোট গ্রহণে কোনো অনিয়ম হলে তাত্ক্ষণিক নির্বাচন কমিশনকে অবহিত করবেন। সে অনুযায়ী অ্যাকশনে যাবে কমিশন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মাঠে রয়েছেন বিজিবি-র‌্যাব-পুলিশের সদস্যরা। ভোট উপলক্ষে সিটি এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। বন্ধ থাকবে সব কলকারখানা।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার রকিবউদ্দিন মণ্ডল বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। আজ সকাল ১০টা থেকে নির্বাচনী মালামাল বিতরণ করা হবে। ইতিমধ্যে ৯ হাজার ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনী এলাকায় যাতে কেউ গোলযোগ, অনিয়ম করতে না পারে তার জন্য বিপুল পরিমাণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন থাকবে।

একনজরে গাজীপুর ভোটের তথ্য : নির্বাচনে মাঠে রয়েছেন মেয়র পদে সাতজন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৫৪ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৮৪ জন প্রার্থী। মেয়র প্রার্থীরা হলেন— আওয়ামী লীগের মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম (নৌকা), বিএনপির মো. হাসান উদ্দিন সরকার (ধানের শীষ), ইসলামী ঐক্যজোটের ফজলুর রহমান (মিনার), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. নাসির উদ্দিন (হাতপাখা), বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মো. জালাল উদ্দিন (মোমবাতি), বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কাজী মো. রুহুল আমিন (কাস্তে) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরিদ আহমদ (টেবিল ঘড়ি)।

নির্বাচনে ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৭ জন ভোটার ভোট দিয়ে একজন মেয়র, ৫৭টি সাধারণ এবং ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের জন্য কাউন্সিলর নির্বাচিত করবেন। এ সিটিতে ৪২৫টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হবে; এর মধ্যে ৩৩৭টিকে গুরুত্বপূর্ণ এবং ৮৮টিকে সাধারণ কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

মাঠে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী : নির্বাচন ঘিরে ২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। গতকাল সকাল থেকে বিজিবি টহলে রয়েছে। তারা ভোটের পরের দিন বুধবার পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় দায়িত্ব পালন করবেন। এর বাইরে আরও বিজিবি সদস্য স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে। প্রয়োজনে সেখান থেকে মোতায়েন করা হতে পারে।

জানা গেছে, সিটির ৫৭টি ওয়ার্ডের প্রতি দুটিতে এক প্লাটুন করে মোট ২৯ প্লাটুন বিজিবি সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন এই নির্বাচনে। ২০ থেকে ৩০ জন বিজিবি সদস্য নিয়ে এ বাহিনীর এক একটি প্লাটুন গঠিত হয়েছে। আর ২৯ প্লাটুন বিজিবির মধ্যে কোনাবাড়ী ও কাশিমপুর এলাকায় ৭ প্লাটুন, টঙ্গী এলাকায় ১০ প্লাটুন এবং জয়দেবপুর, বাসন চান্দনা চৌরাস্তা ও কাউলতিয়া এলাকায় ১২ প্লাটুন দায়িত্ব পালন করবে। নির্বাচনে সার্বিক নিরাপত্তার জন্য বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ, এপিবিএন, আনসারসহ প্রায় ১৫ হাজার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন থাকবেন।

নগরীর ৫৭টি ওয়ার্ডে পুলিশ ও আনসারের সমন্বয়ে ৫৭টি স্ট্রাইকিং ফোর্স এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ২০টি স্ট্রাইকিং ফোর্স কাজ করবে। এ ছাড়া ৫৭টি ওয়ার্ডে র‌্যাবের মোট ৫৭টি টিম মোতায়েন থাকবে। নির্বাচনের আগে ও পরে চার দিন ৫৭টি ওয়ার্ডে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত থাকবেন। আরও ১০ জন অতিরিক্ত ধরে সর্বমোট ৬৭ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া সিটির প্রতি তিনটি ওয়ার্ডের জন্য একজন করে মোট ১৯ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত থাকবেন। তারা ভোটের পরের দিন ২৭ জুন পর্যন্ত নগরীতে দায়িত্ব পালন করবেন।

থাকবেন ৭০০ র‌্যাব সদস্য : র‌্যাব-১ এর গাজীপুরের পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মোহাম্মদ মহিউল ইসলাম জানান, গাজীপুর সিটি নির্বাচনে ৫৭টি ওয়ার্ডে একটি করে টহল দল নিয়োজিত থাকবে। প্রায় ৭০০ র‌্যাব সদস্য নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করবেন। গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ জানান, সিটি নির্বাচন উপলক্ষে ইতিমধ্যে পুরো গাজীপুর সিটি এলাকা নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। পোশাক ছাড়াও বিপুল পরিমাণ পুলিশ সাদা পোশাকে নগরীর বিভিন্ন স্থানে দায়িত্ব পালন করছে।

ইসির নিজস্ব পর্যবেক্ষক থাকবে ৬১ জন : এই সিটি ভোটে নতুন উদ্যোগ নিয়েছে ইসি। এবার এসএমএসভিত্তিক ভোটকেন্দ্র মনিটরিং ব্যবস্থা চালু হচ্ছে। এক্ষেত্রে নির্বাচন চলাকালীন সময়ে ভোটকেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের কাছ থেকে (শর্টকোডে-১০৫) এসএমএসের মাধ্যমে ১৯ বিষয়ে গোপনে তথ্য নেবে নির্বাচন কমিশন। সেইসঙ্গে বিশেষ মুহূর্তে চালু থাকবে বিশেষ এসএমএসের ব্যবস্থাও। এক্ষেত্রে কোনো কেন্দ্রে জাল ভোট বা সিল মারার ঘটনা ঘটলে বা তথ্য পেলে তাত্ক্ষণিক ব্যবস্থা নেবে কমিশন। এজন্য সংশ্লিষ্ট প্রিসাইডিং অফিসারদের জন্য একটি নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। সেইসঙ্গে ইসির নিজস্ব ৬১ কর্মকর্তাকে ভোট পর্যবেক্ষণে নিয়োজিত করা হয়েছে। ভোটের দিন তারা কেন্দ্রে কেন্দ্রে অবস্থান করবেন।

৬ কেন্দ্রে ইভিএম : জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার সম্ভব না হলেও স্থানীয় নির্বাচনে এ প্রযুক্তির ব্যবহার ধীরে ধীরে বাড়ছে। রংপুর ও খুলনার পর গাজীপুরে ৬টি কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হচ্ছে। ইসি জানিয়েছে, ৬টি কেন্দ্রে ইভিএম ও ৩টি কেন্দ্রে সিসিটিভি স্থাপন করা হচ্ছে। যেসব কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হবে সেগুলো হলো ১৫৪, ১৫৫, ১৭৪, ১৭৫, ১৯১ ও ১৯২ নম্বর কেন্দ্র। ইসি জানিয়েছে, আজ ভোটের আগের দিন ২৫ জুন ৬ ভোটকেন্দ্রে সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত মক ভোটিং অনুষ্ঠিত হবে।

আজ রাত ১২টা থেকে ২৬ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত জরুরি সার্ভিস ব্যতীত অন্য সব যানবাহন বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সেইসঙ্গে এই সময়ে সিটি করপোরেশন এলাকায় মালামাল পরিবহনও বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিয়েছে কমিশন। এ ছাড়া গত ২৩ জুন মধ্যরাত থেকে মোটরসাইকেল চলাচলেও নিষেধজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

গাজীপুরে নির্বাচন অবাধ শান্তিপূর্ণ করতে ভূমিকা রাখবে ইসি : গাজীপুর সিটি নির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করতে নির্বাচন কমিশন যথাযথ ভূমিকা রাখবে সরকার এটাই আশা ও বিশ্বাস করে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি গতকাল সকালে গাজীপুরের সফিপুরের আনসার ভিডিপি একাডেমীতে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সার্কেল অ্যাডজুটেন্ট/সহকারী সার্কেল অ্যাডজুটেন্ট/উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা পদে নব নিযুক্ত ১৯১ জনের ৬ মাস মেয়াদি মৌলিক প্রশিক্ষণ সমাপণী কুচকাওয়াজে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দিয়ে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

এসময় তিনি আরও বলেন, গাজীপুর সিটিতে ভোটাররা যাকে খুশি তাকে ভোট দেবে এতে সরকারের কোনো পরামর্শ নেই। এসময় তিনি আগামী জাতীয় নির্বাচনে আনসার বাহিনীর সদস্যরা তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করবেন বলেও জানান।

মৌলিক প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজে আরও উপস্থিত ছিলেন বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শেখ পাশা হাবিব উদ্দিন, অতিরিক্ত মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নুরুল আলম, একাডেমীর ভারপ্রাপ্ত কমান্ড্যান্ট সাইফুদ্দিন মোহাম্মদ খালেদসহ বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

অনুষ্ঠানে স্ব স্ব ক্ষেত্রে আশাব্যঞ্জক ফলাফলের জন্য তিনজন চৌকষ প্রশিক্ষণার্থীকে পুরস্কৃত করা হয়। সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন

news portal website developers eCommerce Website Design
Close ads[X]