আগুন লাগে মনে কোন সে ফাগুনে-তাসলিমা রুবি

হে কালো গোলাপ আমার,
তুমি তো জানো, আমার পা’দুটো সোনার শিকলে বাঁধা
তোমার জন্যই শিকল ছিঁড়ে যমুনাপাড়ে ছুটে আসে রাধা।
কাল যখন বললে, রমনায় এসো –
দেখে যাও, কত কৃষ্ণচূড়া ফুটেছে!
আগুন লেগেছে রমনার আকাশে বাতাসে
দেখে যাও নিজের চোখে সোনালুর ডালে ডালে
হলুদিয়া পরী এসে কেমন করে বসেছে খোলা চুলে।
.
চেয়ে দেখি, আকাশ-জানালায় আছো দাঁড়িয়ে
হাত বাড়ালে অমন আদিম নেশা…
আমি কি না এসে পারি?
তোমার ভিতর আমি ভেনাস হয়ে উঠি
কখনো সদ্য কৈশরত্যাগী মেলানকলি
ছুঁয়ে যাই ফাগুন রাঙা বুকের বাতাস
গাঁথছি মালায় দেবযানীর বিশাল আকাশ
পরনে ছিল কলাপাতা শাড়ি
জড়িয়ে দিলে সোনালু ফুল মেঘকাজল খোঁপায়
হয়তো সে ছিল ভুল
তবুও জেনেশুনে ভুল কুড়াই, ফুল কুড়াই।
.
আমাকে নাকি পার্বতীর মতো লাগছিল
তুমি মুগ্ধ বিস্ময়ে চেয়েছিলে –
আচ্ছা, পার্বতী কি জানতো?
আজীবন প্রেমানলে জ্বলতে হবে ?
ধুকে ধুকে পুড়ে পুড়ে মরতে হবে?
তবে সে রাতে কেন গিয়েছিল দেবদাসের পায়ে মাথা ঠুকতে ?
কেন আজন্ম দাসী হতে চেয়েছিল, কেন নেমে ছিল এতটা নীচে!
কতটা সাধনায় দাসী হওয়া যায় জানতো কি সে কথা দেবদাস?
.
ইচ্ছের চিঠিগুলো ছুটে ঢেউয়ের আগে
আরো রক্তিম হয়ে ওঠে নষ্ট হবার অনুরাগে
বুকে ফুটে ওঠে কৃষ্ণচূড়ার সোহাগ
নৈশব্দ শুনিয়ে যায় মিলন বেহাগ।
.
ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যানের গোলাপ কাননে
নিয়ে গেলে অগুনঝরা এক বসন্ত-সন্ধ্যায়
অতঃপর লিওনার্দোর রঙতুলিকে
বলেছো হে মহান চিত্রকর,
আমাদের যুগল ছবি এঁকে দাও।
কাঁচাসোনা রঙে সে ছবি যেন হাসে
লিওনার্দো মিটমিট করে চেয়ে বললে
প্রেম তো শাশ্বত হে কবি; বুকে বাসা বাঁধে
বিশ্বাস করো আমার তুলিতে আঁকবো
পুষ্পিতা প্রেমের নতুন নগরী
.
পৃথিবীর সব রঙ তোমার চোখে দেখেছি
ফোঁটা কদমের ঘ্রাণ তোমার নিঃশ্বাসে ভরে থাকে
মন বলে, টেনে নেই তারে বুকের গহীন ভিতরে
তুমি এলিজাবেথের বাগানের অহংকার
আর দুরন্ত প্রেমিক যুবরাজ জিউস আমার।
.
তোমার অশান্ত বুক ছুঁয়ে ধেয়ে আসে অজস্র আগুন
জুড়ে থাকো প্রেম-উষ্ণতায় এই দেহমন
তুমিই আমার কবিতার খাতা
হিজিবিজি আঁকা না বলা কথা
খোলা রমনার আগুনরাঙা আকাশ
তুমি কখনও সমুদ্র, কখনও সাইক্লোন, কখনও ঝড়োবাতাস
আমি উপকুল তোমার
ভেঙে যাবো, গড়ে যাবো সভ্যতা শতবার।
.
তোমাতে খুঁজে নেবো আদিম অসুখ।
দেবতার আসনে বসিয়ে
মিনতি করে বলি তুমি কি আমার কষ্ট বোঝ?
তুমি আমার আঁধার বুকে নিদারুণ খরা
তোমার জন্য নষ্ট হতে ইচ্ছে করে মধ্যদুপুর বেলা
বুকে কষ্টের অসুখ হতে, প্রিয় রঙ শাড়ির আঁচলে
তোমার ঘ্রাণ ভরে নিতে সাধ জাগে মনে
চোখের ঘন কাজলে, তিলকের মায়ায়
তোমাকে বেঁধে রাখতে চাই
আর সে কথা বার বার সূধাই
তুমি আমার সত্তা জুড়ে প্রখর মেরুপ্রভা
কবিতা হও! আগুন-ফুল ফোঁটাও!
জীবনের ভুল হও আর আমাকে পোড়াও।