শারাবান তাহুরা’র দু’টি কবিতা

মেঘ বিরহ

বলে দাও ওগো বরষার জল
কেন এতো মন কাঁদে
কেন এতো মনে, অঝোর শ্রাবণে
ভালবাসা বাসা বাঁধে!

কেন এতো টান, চাপা অভিমান
দুচোখের কোল জুড়ে,
ভাদরের মেঘ ঝর ঝর ঝরে
হৃদয় টা পুড়ে পুড়ে।

আজ বলে দাও শ্রাবণের মেঘ
জলের ঘোমটা ওগো
কিসের ব্যথায় ম্লান হয়ে যাও
কার টানে বলনা গো।

কিসের বিরহে আকাশ পুড়িয়ে
মাটিতে নামালে জল
বুকের উঠোন পুড়ে পুড়ে গেলে
দুচোখেও নামে ঢল।

বলে দাও আজ বেদনা বিধুর
বিরহ রাতের কথা
ঝর ঝর করে ঝরে গেল সব
জমে থাকা নিরবতা

বরষা তোমার কত জোর দেখি
ভালবাসা ধরে রাখো
হৃদয়ে আগুন যত পারো দাও
দুচোখেই তুমি থাকো।

 

 

আশা-নিরাশা

আজও তুই রাত জেগে আঙিনায়
বুক জুড়ে কত আশা দোল খায়
ঐ পথে কে আসে, কে যে যায়
জোছনায়।

চোখ তোর নিবে গেছে সেই কবে
কেরোসিনে বাতি জ্বেলে শোধ হবে?
এতদিন জল হয়ে যা শুকায়
বেদনায়।

চাঁদ তারা মিইয়ে গেলে আকাশে
এই বুঝি এলো কেউ, কে আসে?
ঝরা পাতা নাড়া খায় বাতাসে
কে আসে?

খোকা তোর আসে না তো এবেলা
কাজ তার পড়ে আছে যে মেলা
টেলিফোনে সেই কথা বলে সে
অলসে।

আজ তোর যক্ষ্মাটা বেড়ে গেছে
পাতা পাতা বড়ি বুঝি হেরে গেছে
কেউ এলে না এলে কি আসে যায়
অবেলায়।

তবু তুই দুই হাতে ইশারাতে
কার খোঁজ করে যাস মাঝরাতে
সে কি তোর মন বুঝে? কেঁদে যায়

নিরালায়?